সিলেটের জকিগঞ্জে একটি পুকুরের পানিতে সিল মারা ব্যালট দেখা গিয়েছে | কৌণিক বার্তা

পুকুরের পানিতে সিল মারা ব্যালট | কৌণিক বার্তা
পুকুরের পানিতে সিল মারা ব্যালট
পুকুরের পানিতে সিল মারা ব্যালট দেখতে পাওয়া গেলেন সিলেটের জকিগঞ্জে একটি পুকুরে।  একটিনয় দু’টি নয়, শত শত সিল মারা ব্যালট পেপার পুকুরের পানিতে ভাসতে দেখা গিয়ে।

গতকাল বুধবার (০৫ জানুয়ারি) বিকেলে সিলেটের জকিগঞ্জের সুলতানপুর ইউনিয়নের গনিপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রের ব্যালটবাক্স ছিনতাইয়ের ঘটনা ঘটে। সুলতানপুর ইউনিয়ের গনিপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের কেন্দ্র থেকে ছিনতাইকৃত ব্যালট বাক্স নিয়ে ফেলা হয়েছে পাশ্ববর্তী পুকুরে তা জানাগিয়েছে। এ ঘটনা কারণে সেই কেন্দ্রে ভোটগ্রহণ স্থগিত করা হয়েছিল বলে জানিয়েছে।

পুলিশ জানিয়েছে, ব্যালট বাক্স ছিনতাইয়ের ঘটনায় কাউকে আটক করা যায়নি।

স্থানীয়রা জানিয়েছেন, এই দিন বিকেল ৩.১৫ টার দিকে সুলতানপুর ইউনিয়নের গণিপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে নৌকার পক্ষে ভোট কম পড়েছে। এমন গুঞ্জনে কর্মী-সমর্থকরা পুলিশের সামনেই ভোট কক্ষে ঢোকে বাক্স ছিনতাই করেন বলে জানান। ছিনতাই করার ব্যালট বাক্স নিয়ে ফেলা হয় স্কুলের পাশ্ববর্তী পুকুরে।  

ছিনতাই করার ব্যালট বাক্সের মধ্যে নৌকা, স্বতন্ত্র আনারস প্রতীকসহ বিভিন্ন প্রতীকে এবং সংরক্ষিত ওয়ার্ড সদস্যদের ব্যালট পেপারে সিল মারা দেখতে পান স্থানীয়রা। এ নিয়ে উপজেলা জুড়ে চাঞ্চল্য সৃষ্টি হয়েছে। খবর পেয়ে ওই কেন্দ্রে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হলেও কেন্দ্রটি ভোট গ্রহণ স্থগিত করা হয়।

শুক্কুর মাহমুদ সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, ওই কেন্দ্রে উচ্ছৃঙ্খল জনতা ব্যালট বাক্স ছিনিয়ে নেয়। তিনি হলেন,সিলেট জেলার সিনিয়র নির্বাচন অফিসার। 

স্থানীয়রা অভিযোগ করেন, সুলতানপুর ইউনিয়নের গণিপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী রফিকুল ইসলামের পক্ষে ভোট বেশি পড়ছে, এমন গুঞ্জনে আওয়ামী লীগের নৌকা প্রতীকের প্রার্থী ইকবাল আহমদ চৌধুরীর পক্ষের লোকজন ব্যালট বাক্স ছিনতাই করেন। পরবর্তীতে প্রশাসনের লোকজন বাক্সগুলো উদ্ধার করলেও সিল মারা ব্যালট পুকুরে ভাসতে দেখেন তারা।

নির্বাচন কমিশন থেকে জানায়, রাতে ভোট গণণার পর আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী রফিকুল ইসলাম পেয়েছেন ৩ হাজার ৮১৫ ভোট। আর নৌকা প্রতীকে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী ইকবাল আহমদ চৌধুরীর ১ হাজার ১১৭ ভোট পেয়েছেন। রিটার্নিং কর্মকর্তার দফতর থেকে জানা গেছে, স্থগিত কেন্দ্রে মোট ভোট প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী পেলেও বিদ্রোহী প্রার্থীর ভোট বেশি থাকবে বলে জানানো হয়।



শেয়ার করুন

0 Please Share a Your Opinion.: