প্রয়োজনে যে মরিতে প্রস্তুত, বাঁচিবার অধিকার তাহারই - ভাবসম্প্রসারণ | SSC HSC JSC pdf

প্রয়োজনে যে মরিতে প্রস্তুত, বাঁচিবার অধিকার তাহারই

মৃত্যুকে বরণ করে নেয়ার চেতনা না থাকলে জীবনে বড় হওয়া যায় না। মরতে প্রস্তুত থাকলেই মানুষের মতো হয়ে বাঁচা যায়।মরণজয়ী দুঃসাহসী মানুষরাই মৃত্যুকে বুক পেতে নিয়ে গড়ে তুলেছে মানব সভ্যতার এই মহিমান্বিত ঐশ্বর্য। মৃত্যুকে বরণ করে মৃত্যুকে জয় করেছেন তাঁরা। অমর হয়ে বেঁচে আছেন পৃথিবীতে। - প্রয়োজনে যে মরিতে প্রস্তুত, বাঁচিবার অধিকার তাহারই

প্রয়োজনে যে মরিতে প্রস্তুত, বাঁচিবার অধিকার তাহারই

ভাবসম্প্রসারণ  প্রয়োজনে যে মরিতে প্রস্তুত, বাঁচিবার অধিকার তাহারই ৬ষ্ঠ, ৭ম, ৮ম, ৯ম, ১০ম ১১ ও ১২ শ্রেণীর জন্য কাযকারি । ভাবসম্প্রসারণ তালিকা SSC HSC JSC বাংলা ২য় পত্রের পরিক্ষায় সহজ ভাবে লিখে ভালো নাম্বার পাবেন সেই ভাবে লেখা হয়েছে।

মূলভাব:

মৃত্যুকে বরণ করে নেয়ার চেতনা না থাকলে জীবনে বড় হওয়া যায় না। মরতে প্রস্তুত থাকলেই মানুষের মতো হয়ে বাঁচা যায়। মরণজয়ী দুঃসাহসী মানুষরাই মৃত্যুকে বুক পেতে নিয়ে গড়ে তুলেছে মানব সভ্যতার এই মহিমান্বিত ঐশ্বর্য। মৃত্যুকে বরণ করে মৃত্যুকে জয় করেছেন তাঁরা। অমর হয়ে বেঁচে আছেন পৃথিবীতে।

সম্প্রসারিত ভাব:

'জন্মিলে মরিতে হবে' এটা চিরসত্য। জীবনে মৃত্যু অনিবার্য। তাই মৃত্যুর ভয়ে হাত-পা গুটিয়ে বসে থাকলে চলবে না। মানুষ এই পৃথিবীতে যদি যথাযোগ্য মর্যাদায় বাঁচার চেষ্টা করে তবেই জীবনে সার্থকতা ফুটে ওঠে। মর্যাদা সহকারে বাঁচার অর্থ জীবনকে আঁকড়ে পড়ে না থাকা এবং সর্বপ্রকার বিপদাপদ ও সংকট সাহসের সাথে মোকাবেলা করা। সৎ-সাহসের মধ্যেই জীবনের সাফল্য নির্ভর করে । বিপদে মানুষ যদি ভীত হয়ে পড়ে তবে তাতে গৌরব যেমন প্রকাশ পায় না তেমনি বিপদ থেকে রক্ষাও পাওয়া যায় না। বাঁচতে হবে সাহসের সাথে।জীবন-মৃত্যুকে যাঁরা পায়ের ভৃত্য করতে পারেন তাঁরাই পান জীবনের পতাকা বয়ে নেওয়ার অধিকার।

এঁদের কথা স্মরণ করেই কবি উচ্চারণ করেন : ’মৃত্যুকে যে এড়িয়ে চলে মৃত্যু তাকেই টানে, মৃত্যু যারা বুক পেতে লয় বাঁচতে তারাই জানে।’

এর জন্য বলা হয় প্রয়োজনে যে মরিতে প্রস্তুত, বাঁচিবার অধিকার তাহারই। এর জন্যে জীবনে বিপদকে তুচ্ছ ভাবতে হবে। যদি জীবনপণ করারও প্রয়োজন পড়ে তবে তাও করার সাহস থাকতে হবে। আত্মত্যাগের সাহস থাকলে জীবনের মূল্য বোঝা যায়। আর কোনো কিছুর ভয়ে যদি হিমসিম খায় তবে তার বাঁচার কোনো সার্থকতা নেই। সাহসের সাথে সকল বিপদ মোকাবেলা করলেই জীবনের অধিকার প্রমাণিত হবে। মানুষকে তাই যথার্থ সাহসী হয়ে জীবনের পথে অগ্রসর হতে হবে। বেঁচে থাকা মানে কোনোমতে গৃহকোণে আবদ্ধ থেকে ভীরু কাপুরুষের মতো ধুকে ধুকে মরা নয়। সত্য, সুন্দর, কল্যাণের জন্যে প্রয়োজনে জীবন দিতেও প্রস্তুত থাকতে পারলে বাঁচবার অধিকার জন্মে। ভীরু কাপুরুষের অর্থহীন জীবন বাঁচবার অধিকারকে খর্ব করে ।

মন্তব্য:

সাহস ও ত্যাগই মানবজীবনকে অর্থবহ করে তুলতে পারে। ভীরুতায় জীবনের অপমান হয়। মৃত্যুর মতো ভয়াবহ সত্যকে অস্বীকার করার কোনো উপায় নেই। কিন্তু তাই বলে জীবনের প্রতিটি আনন্দঘন মুহূর্ত মৃত্যুভয়ে নষ্ট করা বোকামী। প্রয়োজনে যে মরিতে প্রস্তুত, বাঁচিবার অধিকার তাহারই। বরং মৃতুকে তুচ্ছ জ্ঞান করে জীবনকে যে উপভোগ করতে পারে একমাত্র সে-ই বেঁচে থাকার স্বাদ নিতে সক্ষম।

বিঃদ্রঃ বাংলাদেশর সকল শিক্ষা বিষয়ের খবর তথ্য জানতে চোখ রাখুন কৌণিক বার্তা ফেসবুক পেজেঃ-


ভাবসস্প্রসারণের সম্পূর্ণ তালিকা
Next Post Previous Post
মন্তব্যগুলো দেখান
মন্তব্যগুলো যোগ করুণ

আপনার মূল মান মতামতটি আমাদের জানান। আমি শালীন ভাষা ব্যাবহার করবো এবং অশ্লীল ভাষা ব্যাবহার থেকে বিরত থাকবো। কৌণিক বার্তা.কম আপনার আইপি অ্যাড্রেস ব্লকের ক্ষমতা রাখে।

comment url