ভাব-সম্প্রসারণ : স্বদেশের উপকারে নাই যার মন কে বলে মানুষ তারে পশু সেই জন | HSC SSC JSC

স্বদেশের উপকারে নাই যার মন
কে বলে মানুষ তারে পশু সেই জন

স্বদেশের প্রতি প্রেম, প্রীতি ও হিত সাধনার মধ্যমে মানুষ প্রকৃত মানুষ হয়ে গড়ে উঠতে পারে। একজন মানুষ নিজ স্বদেশের জন্মের পর থেকে স্বদেশের মাটি, বাতাস ও পানি ব্যবহার করে বেঁচে থাকে। স্বদেশের প্রতি তাই সেই মানুষের অক্লান্ত ভালােবাসার জন্মায়। আর যে ব্যাক্তির স্বদেশের প্রতি কোন ভালােবাসা নেই, মমত্ব নেই, দেশ ও জাতির মহাবিপর্যয়ে যে ব্যাক্তির হৃদয় কাঁদে না, তারা অকৃতজ্ঞ ও পশুর সমান।

ভাব-সম্প্রসারণ : স্বদেশের উপকারে নাই যার মন কে বলে মানুষ তারে পশু সেই জন

স্বদেশের উপকারে নাই যার মন কে বলে মানুষ তারে পশু সেই জন

এই ভাবসম্প্রসারণটি সকলো শ্রেণীর জন্য উপযোগী | SSC HSC JSC |

ভাব-সম্প্রসারণঃ স্বদেশের উপকারে নাই যার মন কে বলে মানুষ তারে পশু সেই জন

মূলভাব:

স্বদেশপ্রেম সর্বোত্তম মানবিক গুণ। একজন মানুষ কতখানি ভালো বা মন্দ তা নির্ণীত হয় তার দেশপ্রেমের মানদণ্ডে। দেশপ্রেমহীন মানুষ পশুরই নামান্তর। একজন মানুষ নিজ স্বদেশের জন্মের পর থেকে স্বদেশের মাটি, বাতাস ও পানি ব্যবহার করে বেঁচে থাকে। স্বদেশের প্রতি তাই সেই মানুষের অক্লান্ত ভালােবাসার জন্মায়। আর যে ব্যাক্তির স্বদেশের প্রতি কোন ভালােবাসা নেই, মমত্ব নেই, দেশ ও জাতির মহাবিপর্যয়ে যে ব্যাক্তির হৃদয় কাঁদে না, তারা অকৃতজ্ঞ ও পশুর সমান।

সম্প্রসারিত ভাব:

সামাজিক জীব হিসেবে মানুষকে কয়েকটি সামাজিক দায়িত্ব পালন করতে হয়। দেশের প্রতি দায়িত্ব পালন করা তা সমাজের উপকার সাধন করা প্রতিটি মানুষের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ কর্তব্য। দেশের প্রতি ভালোবাসা সুনাগরিকের পরিচয়। দেশকে ভালোবেসে দেশ ও জাতির কল্যাণে নিজেকে উৎসর্গ করা প্রত্যেকটি দেশপ্রেমিক নাগরিকের উদ্দেশ্য ও লক্ষ্য হওয়া উচিত। অর্থ-সম্পদ, বংশগত আভিজাত্য ও পদমর্যাদার মাপকাঠিতে মনুষ্যত্ব নির্ণীত হয় না। মানুষ ধনবান হতে পারে, রূপবান হতে পারে, বিশাল ক্ষমতার অধিকার হতে পারে; কিন্তু তার মধ্যে যদি দেশপ্রেম না থাকে, তবে সে মানুষ নামের কলঙ্ক বলে বিবেচিত হবে। সদেশ ও স্বজাতির উপকারে যার কোনো ভ্রূক্ষেপ নেই, দেশের কল্যাণে যে নিবেদিতপ্রাণ নয়, দেশ ও জাতির মহাবিপর্যয়ে যার প্রাণ কাঁদে না, সে বিবেকবর্জিত, অমানুষ ছাড়া কিছুই নয়। এ ধরনের স্বার্থপর ও আত্মকেন্দ্রিক মানুষ আর পশুর মধ্যে মূলত কোনো পার্থক্য নেই। পশুর মধ্যে নীতিজ্ঞান নেই, দেশ বা জাতির প্রতি কোনো মমত্ববোধ নেই, ন্যায়-অন্যায় বিচারবোধ নেই তেমনি অনেক মানুষ আছে যাদের মধ্যে স্বদেশ বা স্বজাতির প্রতি কোনো ভালোবাসা নেই। এরা মানুষ নামের অযোগ্য, অমানুষ। পশুর সাথে এদের তেমন পার্থক্য খুঁজে পাওয়া যায় না। বস্তুত, দেশের জন্যে কাজ করতে পারলে সত্যিকারের মানুষের মতো মানুষ হওয়া যায়। যাদের অন্তরে দেশপ্রেম নেই তারা নিতান্তই আত্মসর্বস্ব ও আত্মস্বার্থপর মানুষ।

মন্তব্য:

মাতৃভূমির প্রতি কর্তব্য পালনের মধ্য দিয়ে আমরা প্রকৃত মানুষ হিসেবে নিজেদের প্রতিষ্ঠা করতে পারি। দেশপ্রেমকেই আমাদের জীবনের ব্রত হিসেবে গ্রহণ করতে হবে। মানবিক গুণের চেয়ে তাদের মধ্যে প্রধানভাবে কাজ করে পশুপ্রকৃতি। পক্ষান্তরে মানুষের ধর্ম হচ্ছে আত্মপ্রীতিতে মগ্ন না হয়ে স্বদেশপ্রীতিকে জীবনের অন্যতম আদর্শ করা।

বিঃদ্রঃ বাংলাদেশর সকল শিক্ষা বিষয়ের তথ্য জানতে চোখ রাখুন কৌণিক বার্তা ফেসবুক পেজেঃ-


ভাবসস্প্রসারণের সম্পূর্ণ তালিকা
Next Post Previous Post
মন্তব্যগুলো দেখান
মন্তব্যগুলো যোগ করুণ

আপনার মূল মান মতামতটি আমাদের জানান। আমি শালীন ভাষা ব্যাবহার করবো এবং অশ্লীল ভাষা ব্যাবহার থেকে বিরত থাকবো। কৌণিক বার্তা.কম আপনার আইপি অ্যাড্রেস ব্লকের ক্ষমতা রাখে।

comment url