নতুন জাতীয় পরিচয় পত্র আবেদন / অনলাইনে নতুন ভোটার আইডি কার্ড করার নিয়ম

বর্তমানে বাংলাদেশের জনগণ নতুন ভোটার আবেদন করার জন্য সর্বনিম্ন বয়স ১৬ হলেই অনলাইনে নতুন ভোটার হওয়ার জন্য বা নতুন জাতীয় পরিচয় পত্র বা আইটি কার্ড বা NID Card করার জন্য আবেদন করতে পারবেন।

নতুন জাতীয় পরিচয় পত্র আবেদন / অনলাইনে নতুন ভোটার আইডি কার্ড করার নিয়ম

আপনার বয়স যদি ১৬ বা তার বেশ হয়ে থাকে, আপনি বাংলাদেশ আইন অনুযায়ী নতুন ভোটার হবার উপযোগী। আপনি নতুন জাতীয় পরিচয় বা ভোটার আইডি কার্ড বা New NID Card করার জন্য অনলইনে রেজিষ্টেশন করতে পারবেন।

আপনার ভোটার আইডি কার্ড করার জন্য আগের মত আর বসে থাকতে হবে না এখন অনেক সুবিধা করে দিয়েছে আপনি যে কোন জায়গায় থেকে যে কোন সময় যে কোন প্রয়োজনে আপনি আপনার হাতে থাকা মোবাইল ফোন বা কম্পিউটা বা ল্যাপটপ এর মাধ্যমে ঘরে বসে নতুন জাতীয় পরিচয় পত্র বা নতুন আইডি বার্ড বা NID card এর জন্য অনলাইন আবেদন করতে পারবেন।

আজ আমি দেখাবো, ঘরে বসেঅনলাইনে নিজে কিভাবে নতুন ভোটার হওয়ার জন্য আবেদন করা যায়। কিভাবে আপনি নিজেই মোবাইল বা কম্পিউটার সাহায্যে আপনার জাতীয় পরিচয় পত্রের জন্য নিবন্ধন  (NID Online Registration)করবেন। 

জাতীয় পরিচয়পত্র / নতুন ভোটার আইডি করার জন্য যা প্রয়োজন

জাতীয় আইডি কার্ড আপডেট একটি চলমার প্রক্রিয়া। আপনি অনলাইনে যেকোন সময় জাতীয় পরিচয়পত্র নিবন্ধনের জন্য আবেদন করতে পারেন।

আপনি যদি বাংলাদেশের নাগরিক হন কিন্তু এখনো NID Card করার জন্য নিবন্ধিত না হয়ে থাকে, এবং যদি আপনার বয়স ১৬ বছর বা তার বেশি হয় কিন্তু এখনো জতীয় পরিচয়পত্রের জন্য নিবন্ধন না করে থাকেন তাহলে আপনি অনলাইনের মাধ্যমে যে কোন সময় একটি ফর্ম পূরণ করে নতুন জাতীয় পরিচয়পত্রের জন্য আবেদন করতে পারবেন।

এরপরে আবেদন কপি এবং প্রয়োজনীয় কাগজপত্র সহ আপনার সংশ্লিষ্ট উপজেলা / থানা নির্বাচন অফিসে জমা দিতে হবে। পরবর্তীতে আপনার সব তথ্য যাচাই শেষে আপনার দেওয়া মোবাইল নাম্বারের মাধ্যমে আপনার ছবি ও আঙ্গুলের ছাপ (বায়োমেট্রিক তথ্য) প্রদানের জন্য ডাকা হবে। এই সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করা হয়েছে নিচে।

নতুন ভোটার আইডি কার্ড করার জন্য আপনার নিম্নলিখিত যোগ্যতা থাকতে হবেঃ

  • বাংলাদেশের নাহরিক হতে হবে।
  • বয়স ১৬ বছরের কম নয়।
  • পূর্বে জাতীয় পরিচয়পত্রের জন্য নিবন্ধন করা হয়নি।

নতুন ভোটার আবেদন ২০২২ / নতুন জাতীয় পরিচয়পত্র আবেদন / New NID Card Online Apply 2022

এখন ঘরে বসে নতুন ভোটার আবেদন করতে পারবেন। নতুন জাতীয় পরিচয়পত্র আবেদন করার জন্য যে সকল কাগজপত্র লাগবে এবং কি ভাবে ঘরে বসে আবেদন করতে পারবেন সে সম্পর্কে বিস্তারিত আমি নিচে ধাপ বা ধাপ দেখানো হয়েছে। 

নতুন ভোটার নিবন্ধন ফরম pdf/ নতুন জাতীয় পরিচয়পত্র নিবন্ধন ফরম pdf / New NID Registration Form pdf

এটি আপনি নির্বাচন কমিশন ওয়েবসাইট থেকে ডাউনলোড করতে পারবেন অথবা আপনি নতুন ভাবে ভোটার আবেদন করার পরে সাবমিট করলে একটি NID Registration PDF কপি দিবে সেটা ডাউনলোড করতে পারবেন। কোন কারণে ডাউনলোড করতে না পারেন তা পরবর্তী সময় আপনার একাউন্ট প্রবেশ করে আবার ডাউনলোড করতে পারবেন।

নতুন ভোটার হতে কি কি কাগজ লাগবে/ NID Card করতে কি কি লাগবে

অনলাইনে আবেদন করার সময় কেন কাগজ জমা দিতে হবে না। কিন্তু অনলাইনে আবেদন করার পরে আবেদনের প্রিন্ট কপি ও নিম্নোক্ত প্রয়োজনীয় কাগজপত্রের ফটোকপি সহ সংশ্লিষ্ট নির্বাচন অফিসে জমা দিতে হবে।

  1. ১. অনলাইনে আবেদন করা ফর্মের প্রিন্ট কপি
  2. ২. S.S.C অথবা সমমানের সার্টিফিকেট (বয়স প্রমাণের জন্য, যদি থাকে)
  3. ৩. জন্ম সনদ (বয়স প্রমাণের জন্য)
  4. ৪. পাসপোর্ট  / ড্রাইভিং লাইসেন্স / টিন সার্টিফিকেট (বয়স প্রমাণের জন্য)
  5. ৫. বাবা, মা স্বামী/স্ত্রীর আইডি কার্ডের ফটোকপি (অবশ্যই)
  6. ৬. ইউটিলিটি বিলের কপি/বাড়ি ভাড়ার রসিদ/হোল্ডিং ট্যাক্স রশিদ (ঠিকানার প্রমাণ হিসেবে)
  7. ৭. নাগরিকত্ব সনদ (প্রযোজ্য হিসাবে)

নতুন ভোটার আইডি কার্ড করার নিয়ম। Online NID Registration

ভোটার আইডি কার্ড কিভাবে বানাবো? অনলাইনে নতুন ভোটার আইডি কার্ড করার জন্য আবেদন অত্যন্ত সহজ এবং সংক্ষিপ্ত প্রক্রিয়া।

আপনার প্রয়োজনীয় ব্যাক্তিগত তথ্য দিয়ে অনলাইনে আবেদন করতে হবে এর পরে প্রয়োজনীয় কাগপত্র নিয়ে আপনার নিকটস্থ নির্বাচন অফিসে জমা দিতে হবে।

আপনার আবেদনটি ভেরিফিকেশন শেষে আপনাকে ছবি ও আঙ্গুলের ছাপ দেযাে জন্য ডাকা হবে এবং আপনাকে একটি ভোটার নিবন্ধন স্লিপ দেয়া হবে। এরপরে ১০ - ১৫ দিনের মধ্যেই আপনার জাতীয় পরিচয়পত্র অনুমোদিত হলে অনলাইন থেকে একটি NID Card ডাউনলোড করতে পারবেন 

পড়ুনঃ কি ভাবে NID Card ডাউনলোড করবেন দেখুন।

অনলাইনে নতুন জাতীয় পরিচয়পত্র ও ভোটার নিবন্ধন প্রক্রিয়া 

১. NID Application System এ একাউন্ট রেজিষ্ট্রেশন 

২. ব্যক্তিগত তথ্য প্রদান

৩. অনলাইনে আবেদন জমা

৪. আবেদর ভেরিফিকেশন

৫. ছবি ও আঙ্গুলের ছাপ (Biometric Information Picture, Fingerprint)

৬.জাতীয় পরিচয়পত্র ডাউনলোড / সংগ্রহ

ধাপ ১ঃ অনলাইনে নতুন ভোটার আইডি কার্ডের জন্য আবেদন।

আপনার পছন্দের ডিভাইস নিবেন এবং আপনার পছন্দের ইন্টারনেট ব্রাউজারের মাধ্যমে  NID Online Registration System ওয়েবসাইট থেকে অনলাইনে ভোটার আইডি কার্ডের জন্য আবেদন করতে পারবেন।

অনলাইনে আবেদন করার সুবিধা হচ্ছে জাতীয় পরিচয়পত্র তথ্য ভুল হওয়ার সম্ভাবনা নেই বললেই চলে কারণ আপনি নিজের তথ্য নিজে দেখে শুনে প্রদানকরছেন এবং আপনার দেয়া তথ্যাই জাতীয় পরিচয়পত্রে প্রিন্ট হবে।

অনলাইনে নতুন জাতীয় পরিচয়পত্রের নিবন্ধনের জন্য নিচের ধাপ গুলো অনুসরণ করুণ।

১.১ প্রথমেই এই লিংকে Bangladesh NID Application System এ আপনার একাউন্ট রেজিষ্ট্রেশন করতে হবে। নিচের ছবিতে দেখুন।

Bangladesh NID Application System এ আপনার একাউন্ট রেজিষ্ট্রেশন

আবেদন করুন” বাটনে ক্লিক করুণ।

১.২ এখানে আপনার নাম, জন্মতারিখ ও ক্যাপচা কোডটি লিখে “বহাল বা সাবমিট ” বাটনে ক্লিক করুন।

NID card অ্যাকাউন্ট নিবন্ধন

১.৩ আপনার একটি সচল এবং আপনার কাছে আছে এমন একটি মোবাইল নাম্বার দিতে হবে এর পরে “বার্তা পাঠান বা SMS পাঠান” বাটনে ক্লিক করুন।

নতুন ভোটার নিবন্ধন

১.৪ আপনার দেওয়া মোবাইল নাম্বারে একটি ৬ সংখ্যা ভেরিফিকেশন একটি কোড দিয়েছে NID অফিস থেকে।এই কোডটি দিয়ে “বহাল” বাটনে ক্লিক করুন।

নতুন ভোটার অ্যাকাউন্ট নিবন্ধন

১.৫ এখন আপনাকে একটি ইউনিক ইউজারনেম (Username) ও (Password) সেট করতে হবে এবং এটি ভবিষ্যতের জন্য সংগ্রহ করে রাখতে হবে। এর পরে আপনার জাতীয় পরিচয়পত্র ডাউনলোড, সংশোধনের আবেদন ও অন্যান্য সেবার জন্য এটি সংগ্রহ করতে হবে।

ভোটার আইডি নিবন্ধন জন্য ইউজারনেম (Username) ও (Password) সেট

ইউজারনেম ইংরেজি নাম ও সংখ্যার মিশ্রনে দিয়ে লিখতে হবে এবং কমপক্ষে ৮ ডিজিটের একটি পাসওয়ার্ড দিতে হবে। এরপর “বহাল” বাটনে ক্লিক করতে হবে।

বিঃদ্রঃ আপনার দেওয়া ইউজারনেম যদি ইউনিক হয়ে থাকে তাহলে নিবন্ধন হয়ে যাবে আর যদি না হয়ে থাকে তাহলে “ইউজারনেম আগে ব্যবহার করা হয়েছে (Username Already Exists)” লেখা দেখাবে।

আপনার ইউজারনেম দেওয়া হলে অটোমেটিক লগইন হয়ে যাবে এবং নিচের মত দেখাবে।

ধাপ ২ঃ ব্যক্তিগত তথ্য প্রদান

জাতীয় পরিচয়পত্র আবেদনের সিস্টেম একাউন্ট রেজিষ্ট্রেশন হলে, আপনার একটি ড্যাশবোর্ড দেখতে পাবে। এবং সেখান থেকে “প্রোফাইল ” বাটনে ক্লিক করতে হবে।

NID Card Apply

২.১ এরপরে ডান পাশে থেকে “এডিট বাটনে” ক্লিক করুন। তারপর নিচের মত একটি পেইজ পাবেন। সেখানে আপনার ব্যক্তিগত তথ্য, অন্যান্য তথ্য ও ঠিকানা লিখতে হবে। আপনার জন্ম সদন ও যদি কো সার্টিফিকেট থেকে তা দেখে সঠিক তথ্য দিয়ে পুরণ করতে হবে এবং “পরবর্তী” বাটনে ক্লিক করতে হবে।

নতুন ভোটার নিবন্ধন ফরম পূরণ

২.২ অন্যান্য তথ্য প্রদান করতে হবে।

জাতীয় পরিচয় পত্র আবেদন ফরম

২.৩ আপনার বর্তমান ও স্থানী ঠিকানা দিতে হবে। 

নতুন ভোটার অনলাইনে আবেদন

২.৪ আপনার সকল তথ্য ঠিক খালে পরবর্তী বাটনে ক্লিক করতে হবে এবং কাগজ পত্র জমা আসবে কিন্তু সেখান কোন কাগজ জমা লাগবে না। এর পর আবার পরবর্তী বাটনে ক্লিক করেতে হবে।

আপনার দেওয়া সকল তথ্য ঠিক থাকলে আপনি “সাবমিট” বাটনে ক্লিক করবেন।

জাতীয় পরিচয়পত্র আবেদন
এর পরে আপনি একটি আবেদন কপি পাবেন সেটি আপনি ডাউনলোড করে প্রিন্ট করবেন।

ধাপ ৩ঃ ভেরিফিকেশন


আপনার আবেদনটি উপজেলা বা জেলা নির্বাচন অফিস যাচাই বাছাই করবে। যাচাই করার জন্য আপনার সাথে যোগাযোগ করতে পারে।  তার পরে আপনার আবেদনটি গ্রহণ বা ভেরিফিকেশন করা হবে।

ধাপ ৪ঃ বায়োমেট্রিক প্রদান

আবেদনটি যাচাই শেষে আপনার ছবি ও আঙ্গুলের ছাপ নেয়ার জন্য ডাক হবে। এর পর ১০ থেকে ১৫ দিন পরে আপনার আবেদনটি অনুমোদিত হলে আপনি জাতীয় পরিচয়পত্র বা NID card ওয়েবসাইট থেকে ডাউনলোড করতে পারবেন।

ধাপ ৫ঃ জাতীয় পরিচয়পত্র ডাউনলোড

আবেদনটি অনুমোদিত হলে, আপনাের দেওয়া মোবাইল নাম্বার মেসেজ পাবেন যে আপনার আবেদনটি অনুমোদিত হয়েছে। আপনার আবেদনটি অনুমোদিত হলে, আপনার দেওয়া ইউজারনেম ও পাসওয়ার্ড দিয়ে প্রবেশ করলে ড্যাশবোর্ড এর ডান পাশে ডাউনলোড একটি অপশান আসবে নতুন জাতীয় পরিচয়পত্র বা ভোটার কার্ড ডাউনলোড করতে পারবেন।

 নতুন ভোটার নিবন্ধন সংক্রান্ত বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর

১। আমি সময়ে ভোটার হিসাবে রেজিষ্ট্রেশন করতে পারিনি ,এখন কি করা যাব?

উত্তরঃ আপনি যে কোন সময়ে রেজিষ্ট্রেশনের জন্য অনলাইনে আবেদন করতে পারবেন ।

২। আমি বিদেশে অবস্থানের কারণে ভোটার রেজিষ্ট্রেশন করতে পারিনি , এখন কিভাবে করতে  পারবো?

উত্তরঃ আপনি যে কোন সময়ে রেজিষ্ট্রেশনের জন্য অনলাইনে আবেদন করতে পারবেন ।

৩। আমি ২০০৭/২০০৮ অথবা ২০০৯/২০১০ সালে ভোটার রেজিষ্ট্রেশন করেছি কিন্তু সেই সময় আইডি কার্ড গ্রহণ করিনি, এখন কিভাবে আইডি কার্ড পেতে পারি?

উত্তরঃ উপজেলা/থানা নির্বাচন অফিস থেকে আপনার কার্ড সংগ্রহণ করতে পারবেন। যদি সেখানেও না পাওয়া যায় তাহলে অনলাই রিইস্যু করার জন্য আবেদন করতে পারবেন ।আবেদন অনুমোদিত হওয়ার পর আপনার মোবাইলে এসএমএস পাঠানো হবে। এরপর অনলাইন থেকে আপনার এনআইডি কার্ড এর কপি ডাউনলোড করে নিন।

৪। ভোটার তালিকার নামের সাথে বিভিন্ন খেতার ,পেশা ,ধর্মীর উপাধি, পদবী ইত্যাদি যুক্ত করা যাবে কিনা?

উত্তরঃ ভোটার তালিকার ডাটাবেজে শুধুমাত্র নাম সংযক্ত করা হয় ,কোন উপাধি বা অর্জিত পদবী তাতে সংযুক্ত করার অবকাশ নাই।

৫। কোথা হতে আইডি কার্ড সংগ্রহ করা যাবে?

উত্তরঃ অনলাইন থেকে ডাউনলোড করতে পারবেন অথবা যে এলাকায় ভোটার রেজিষ্ট্রেশন করেছেন সেই এলাকার উপজেলা/থানা নির্বাচন অফিস থেকে আইডি কার্ড সংগ্রহ করা যাবে।

যোগাযোগ

ভোটার সম্পকে আর তথ্য জানতে যোগাযোগ করতে পারবেন নিচে দেওয়া তথ্য গুলোর ম্যধমে।

ই-মেইলঃ info@nidw.gov.bd

হেল্পলাইনঃ ১০৫, +৮৮ ০১৭০৮-৫০১২৬১

যোগাযোগের সময়ঃ রবিবার-বৃহস্পতিবার, সকাল ৯:০০টা - বিকাল ৫:০০টা পর্যন্ত।


হোমপেইজে যান Kounik Barta.com
জাতীয় পরিচয়পত্র সংক্রান্ত সকল তথ্য জাতীয় পরিচয় পত্র
ভোটার নিবন্ধন নতুন ভোটার আইডি কার্ড করার নিয়ম
এনআইডি ডাউনলোড ফরম নম্বর দিয়ে ভোটার আইডি কার্ড ডাউনলোড
তথ্য যাচাই ফেইস ভেরিফিকেশন ছাড়া জাতীয় পরিচয়পত্রের তথ্য যাচাই
রিইস্যু হারানো জাতীয় পরিচয়পত্র ডাউনলোড
সংশোধন জাতীয় পরিচয়পত্র সংশোধন করার নিয়ম
Next Post Previous Post
মন্তব্যগুলো দেখান
মন্তব্যগুলো যোগ করুণ

আপনার মূল মান মতামতটি আমাদের জানান। আমি শালীন ভাষা ব্যাবহার করবো এবং অশ্লীল ভাষা ব্যাবহার থেকে বিরত থাকবো। কৌণিক বার্তা.কম আপনার আইপি অ্যাড্রেস ব্লকের ক্ষমতা রাখে।

comment url